ব্লগ বর্ণনা

আপনার সন্তানের জন্য ফোনিক্স কেন গুরুত্বপূর্ণ | Why is Phoenix important for your child?



November 06, 2021

কেন আপনার সন্তানকে ফোনিক্স শেখাবেন?

 

টিভি স্ক্রিনের সামনে চলছে ‘হ্যারি পটার এন্ড দ্যা ফিলোসফার্স স্টোন’। কাল্পনিক উপনাসের এই সিরিজটিতে অনর্গল ইংলিশ বলে চলছে চরিত্রেরা। আপনার সন্তানও দেখছে সেটি। তবে জানেন কি? শুধুমাত্র সঠিকভাবে ইংরেজি আলফাবেটগুলোর উচ্চারণ না জানার কারণে সে সঠিকভাবে বুঝে উঠতে পারছে না?

প্রাত্যহিক জীবনে এমন অনেক মুভি, সিরিজ কিংবা কার্টুন দেখলেও ইংরেজি ধ্বনিতত্ব সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকার  কারণে শতভাগ বোধগম্য হয়ে উঠে না বিষয়বস্তু। তবে এটিই আপনার সন্তানের শেখার জন্য বড় একটা মাধ্যম হতে পারতো। একেবারে শৈশব থেকেই যদি ইংরেজি বর্ণের সঠিক উচ্চারণ জানা থাকে তাহলে ইংরেজি ভাষাচর্চার চারটি ক্ষেত্র নিয়ে আর ঝামেলার দেখা মেলে না!

আর এজন্যই ডিজিটাল শিক্ষাগুরু মজারু নিয়ে এলো— ‘ফোনিক্স ফর কিডস’ কোর্সটি। যা সাজানো হয়েছে ৪ বছর থেকে ৮ বছর বয়সী আপনার সোনামণির জন্য! পড়া, লেখা, শোনা আর বলা এই চারটি ক্ষেত্রে আপনার সন্তানের দক্ষতা চান? হ্যাঁ তাহলে এর সমাধান এখানেই!

 

এখন জেনে নাওয়া যাক কোর্স সম্পর্কিত যত প্রশ্নের উত্তর :

 

ফোনিক্স কি?

 

ইংরেজিতে Phonics ( ফোনিক্স )  শব্দের অর্থ – ধ্বনিবিজ্ঞান। মূলত ধ্বনি সম্পর্কিত সকল আলোচনার বিশ্লেষণাত্মক সমাধান মেলে ব্যাকরণের এই অংশে!

 

কিন্তু কাদের জন্য এই ফোনিক্স?

 

বয়সের সাথে সাথে আমাদের জানার পরিধি হয় বৃহৎ। তবে সেই শুরুটা যদি ছোট থেকেই হয় তাহলে শেখার প্রতি আকর্ষণ থাকে জাগরূক! আর তাই ডিজিটাল শিক্ষাগুরু মজারু এই কোর্সটিকে সাজিয়েছে চার থেকে আট বছর বয়সী সকল সোনামণিদের জন্য। আপনার হাতের মুঠোফোনটার সাহায্যেই সন্তানের পাশে বসে ইংরেজি অ্যালফাবেটের সঠিক উচ্চারণ শেখাতে পারবেন এই কোর্সটির মাধ্যমে!

 

শিশুরা কেন ফোনিক্স শিখবে?

 

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে জন্মগতভাবে একটি শিশুর মাতৃভাষা বাংলা। মায়ের বলা থেকেই তার শোনা ; অতঃপর শিখে ওঠা। তবে বয়সের সাথে সাথে শেখার পরিধি হয় বৃহত্তর। আর আন্তর্জাতিক ভাষা হিসেবে ইংরেজির গুরুত্বটা অনুধাবন করতে পারেন নিশ্চয়ই! পাশাপাশি উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে কিংবা দৈনন্দিন জীবনে স্মার্ট উপায়ে এর ব্যবহারে প্রতিটি মানুষেরই ফোনিক্স সম্পর্কে যথাক্রমে ধারণা থাকা আবশ্যক। আর এজন্যই মূলত আপনার সন্তানকে ফোনিক্স শেখানো আবশ্যক।

 

 

ফোনিক্স শেখার উপকারিতা কী?

 

 

একটু বিস্তারিত আলোচনা করা যাক!

 

  1. “Practice Makes Perfect”  ইংরেজিতে এই উক্তিটি হয়ত শুনে থাকবেন! হ্যাঁ ভালো অভ্যাস আসলেও নিখুঁত করে তোলে। শব্দবিদ্যার সাথে সাবলীলতার বিকাশ ঘটাতে ফোনিক্স বেশ জনপ্রিয়!  কারণ, এটি শিশুদের পড়ার সাবলীলতা বিকাশের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। সময়ের সাথে সাথে, শিশুরা সাবলীল পাঠক হিসাবে গড়ে উঠতে সক্ষম হয়। যারফলে দ্রুত পরিচিত শব্দগুলোকে চিনতে পারে এবং তাদের মুখোমুখি হওয়া নতুন শব্দগুলি সহজেই বের করতে পারে।

  2. উন্ড টু সিম্বল রিকগনিশন দ্রুততর হয়। যে শিশু ধ্বনিবিদ্যার মাধ্যমে পড়া শেখে তার চমৎকার ধ্বনিসংক্রান্ত সচেতনতা থাকে। যা তাদের উপযুক্ত শব্দের সাহায্যে অক্ষর প্রতীকগুলিকে শোনার , এবং শনাক্ত করার এবং ম্যানিপুলেট করার ক্ষমতা রাখে।

  3. পড়া একটি শিশুর ধৈর্য এবং একাগ্রতা তৈরি করে। বেশিরভাগ সময় যখন একটি শিশু পড়ার অভ্যাস করে , তখন তাদের স্থির ও চুপচাপ বসে থাকতে হয় যাতে তারা হাতের কাজটিতে মনোযোগ দিতে পারে। তারা সময়ের সাথে সাথে একজন শিক্ষকের নির্দেশ অনুসরণ করে আরও ভাল ছাত্র হয়ে ওঠে। এক্ষেত্রে ফোনিক্স জানা প্রয়োজনীয়।

  4. পড়া শব্দভাণ্ডার এবং ভাষার উপলব্ধি উন্নত করে। বিস্তৃত পাঠ শিশুদের তাদের শব্দভাণ্ডার এবং সাধারণ জ্ঞান প্রসারিত করতে সাহায্য করে। ধ্বনিবিদ্যা তরুণ পাঠকদের তাদের পড়ার বোধগম্যতা বিকাশ করতে এবং তারা পড়ার সাথে সাথে নতুন শব্দগুলিকে ডিকোড করতে দেয়। অনুশীলনের সাথে, এই ক্রিয়াটি এত স্বয়ংক্রিয় হয়ে ওঠে যে তারা পড়ার সময় শব্দের সামগ্রিক অর্থ সহজেই বুঝতে সক্ষম হয়।

  5. পড়া মস্তিষ্কের ব্যায়াম করে। পড়া নিজেই একটি জটিল মানসিক কাজ যা মস্তিষ্কে নতুন নিউরাল পথ তৈরি করে একজন তরুণ পাঠকের বুদ্ধিমত্তা বাড়াতে সাহায্য করে। ধ্বনিবিদ্যা শিশুদের একটি পৃষ্ঠায় লেখা অক্ষর দেখতে দেয় এবং তাদের সঠিকভাবে বোঝার জন্য সরঞ্জাম সরবরাহ করে। পড়া এবং লেখার বাইরে, এটি শিশুদের সাধারণ চিন্তাভাবনার দক্ষতা বিকাশে সহায়তা করে যেমন সম্ভাব্য যুক্তি এবং সাদৃশ্য দ্বারা যুক্তি। এছাড়া আরও বেশকিছু কারণে শৈশব থেকেই ফোনিক্স সম্পর্কে ধারণা থাকা জরুরী।

 

ফোনিক্স না শিখলে কী সমস্যায় পড়ছি?

ধ্বনিবিদ্যার নির্দেশনা শিশুদের শেখায় কিভাবে তাদের নিজ নিজ ধ্বনিতে অক্ষরগুলিকে ডিকোড করতে হয় , এমন একটি দক্ষতা যা তাদের অপরিচিত শব্দগুলো নিজে থেকে পড়ার জন্য অপরিহার্য। আর এক্ষেত্রে ফোনিক্স জানায় ঘাটতি থাকার ফলে পরবর্তীতে অজ্ঞতার সৃষ্টি হয়।

 

ফোনিক্স কোথায় শিখবো?

শৈশবে চর্চার প্রতিষ্ঠান হলো তোমার পরিবার। তনে শুরুটা হোক এই পরিবার থেকেই! বাবা-মা , বড় ভাইবোন বা পরিচিতের মাধ্যমে! আর ডিজিটাল শিক্ষাগুরু মজারু তো আছেই!

 

কী থাকছে এই কোর্সে?

 

  • ২৬টি বর্ণমালার সঠিক উচ্চারণ
  • ৪৪ শব্দকে সাতটি শ্রেণিতে ভাগ করে তার উচ্চারণ
  • গ্রুপ ডিসকাশন
  • ফ্ল্যাশকার্ড এবং নোটস
  • পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন 

 

কোর্স ডিউরেশন :

 

১৬টি লাইভ ক্লাস , ৮ সপ্তাহ , ২ মাস , প্রতি সপ্তাহে ২টি ক্লাস, প্রতি ক্লাস ১ ঘন্টা। আর দারুণ এই সময়টিতে আপনার সন্তানকে শেখাতে সহায়তা করবে লামিয়া হক ম্যাম। ফোনিক্স টিচার হিসেবে যিনি এক দশক ধরে কাজ করছেন জাগো ফাউন্ডেশনে। এছাড়া তিনি ফেইথ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সিনিয়র ইংলিশ টিচার।

 

 

ফোনিক্স শিখলে ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার কেমন হবে?

 

 

এক কথায় ফোনিক্স জানা থাকলে ইংরেজি বলাটা হবে একেবারে ন্যাটিভ ইংরেজদের মতো। এর ফলে উচ্চশিক্ষার ভিত শক্ত হবে, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে কাজ করার ‍সুযোগ তৈরি হবে। যে কোনো ক্যারিয়ারে ন্যাটিভ ইংলিশ স্পিকারদের জন্য রয়েছে আলাদা মর্যাদা। ইংরেজি যেহেতু আন্তর্জাতিক ভাষা, সুতরাং এই ভাষা সঠিক উচ্চারণে জানা থাকলে আপনার সন্তান হয়ে উঠবে বিশ্বনাগরিক।


প্রিয় অভিভাবক, মজারুর এই কোর্সে আপনার সন্তানকে যুক্ত করতে পারেন নির্দ্বিধায়।

 

কোর্সের লিংক- Click Here